Bangladesh: Domestic Politics and External Actors

A new government led by Prime Minister Sheikh Hasina has started functioning in Bangladesh following the general elections held on 5 January 2014. The new cabinet has received positive responses from different groups in Bangladesh for inducting veteran politicians. As many as 30 members of the outgoing cabinet were dropped, allegedly for their linkages with corruption or poor performance. The first session of the 10th National Parliament was called on 29 January 2014 in a new political environment. The parliamentary democracy of Bangladesh has entered its third phase. In the first phase, immediately after the Liberation War in 1971 Bangladesh adopted the Westminster system of government. The first Constitution, known as the 1972 Constitution, is still lauded by the centre, centre left, centre right and left elements of Bangladeshi politics. In 1975, the country was brought under the the presidential form of government which lasted until the fall of the Ershad regime on 6 December 1990.

The twelfth Amendment to the Constitution on 6 August 1991 re-introduced the parliamentary form of government in Bangladesh. The introduction of the Caretaker Government system through the 13th Amendment in 1996 added a new dimension to parliamentary democracy in Bangladesh. After more than two decades, the parliamentary system witnessed a new phase marked by the absence of the Caretaker Government system, and more importantly, absence of a major political party, Bangladesh Nationalist Party (BNP), in the Parliament. BNP ruled the country for more than 14 years. Now the main opposition party in the 10th Parliament is the Ershad-led Jatiya Party. Understandably, BNP with its allies will remain engaged in street politics while in the parliament the government will face its former ally as the main opposition party.

This is a script not written by any pundit or by any political astronomer – rather it is the inevitable outcome of the high stakes zero-sum-game in in Bangladeshi politics. The main players are obviously the two main alliances – the BNP led 18-party (now 19- party) alliance and the Awami League-led grand alliance. The people continue to be disillusioned and disappointed. The political process moved in its own course, paving the way for formal democracy to continue as the last resort for a stable and peaceful society. The constitution has been upheld. Bangladesh with its high performing economy, growing middle class and promising social development cannot remain hostage to confrontational and violent politics. It is an abiding reality that gives a strong message to political actors in the country and their friends and well-wishers at home and abroad.

A major feature of post-poll Bangladeshi politics has been the role of external powers. Unquestionably, these external powers are friends and development partners of Bangladesh. It is a common trend today that development partners, known as the diplomatic community, tend to get involved in domestic politics in the developing world. In South Asia, Nepal, Maldives, and Pakistan have faced this in different degrees. Bangladesh is no exception. It is generally perceived that parties in opposition often invite active involvement of the diplomatic community in domestic politics, making it part of their anti-government movement. While the diplomatic community could not resolve any single violent political dispute between the two major political parties in Bangladesh, there is no sign of their diminishing role. In 2013, it reached in its peak when the UN-supported Taranco mission made several attempts to strike a deal between the warring political parties.

This time, surprisingly, almost all major development partners attempted to get involved in the unfolding political situation in Bangladesh. The US, EU, India, the UN, China, Japan, Saudi Arabia, Canada, and Australia all played a role. Of course, some were more visible than others. What is interesting is their common spirit – one of idealism for holding credible and inclusive elections. No doubt, every state has their national interest to serve in the foreign policy arena. Diplomats from all these countries and groups are to defend their national interests, and they have been doing so. Yet, it appears that many of these external players were guided by ideals rather than the reality in Bangladesh. The diplomatic community was solely concerned with the electoral process without giving much consideration to the evolving political dynamics in Bangladesh.

However, in the post poll context, the same actors have been demonstrating a better understanding of domestic politics in Bangladesh. Issues of war crimes trials, rise of political violence, militancy, threat of fundamentalist politics, and vulnerability of minority communities to vested quarters matter for democracy and governance in Bangladesh. They matter seriously against the backdrop of massive destruction and heinous attacks on the lives and properties of common people as seen before and after the polls. The post-poll European Parliament resolution (16 January 2014), the Hearing on Bangladesh by the US Senate Committee on Foreign Relations (11 February 2014), and statements of several development partners of Bangladesh show a pragmatic view of the political situation in Bangladesh. Any misperception or subjective view of Bangladeshi politics would not be of any help to the 160 million people of Bangladesh nor democracy in the country.

For more information, visit at: Domestic Politics

More Bangladesh Politics Articles

Why recruitment agency services are mandatory for entrepreneurs

For the entrepreneurs, selection of the right candidates for their startups is very important. You know that in the business world, competition is very high. You cannot afford to start a new venture without eligible staff on board. For a new venture, the starting few years are very crucial when it sets to adapt to volatile markets. The manpower chosen with great recruitment agencies can only help your venture to adapt easily.
If your venture is new then you will require no human resource department at all. The entire task of recruiting man power has to be handled either by you or a third party contracted recruiter. According to Smith Alan, an angel investor, “Startups are the dreams of the entrepreneurs which are slowly realized. However the new entrepreneurs make a common mistake of compromising on the quality of manpower. I have personally seen new ventures ending up into dump because of it. “
He adds- My best advice to the entrepreneurs is to go for the expert recruitment agencies to pool the best manpower for their ventures.
We have no intention at all to discourage your move or put down your morale. Entrepreneurship is a critical domain and here being smart and knowledgeable is only going to help. This is what we are going to provide you here, the knowledge necessary for proper setup of your venture.
Time management
The most important resource that a startup venture needs to pay attention to is the time. You do not have excess of it and in your case if you are wrong with time management then the more established competitors of yours will get ahead easily. The manpower recruiting Bangladesh services save a lot of your time that you may be wasting on hiring the most eligible candidates. The expertise of these recruitment agencies will help you to invest your precious time in other business activities. The strict selection of candidates based on skills and employability tests provides better retention.
Easily availability of candidates
We all know that recruitment agencies have a vast network reach. It means you are not restricted to the appointment of the candidates from some fields only. With recruitment agencies on your side, you can be rest assured to get the best employees making use of their quality and reliable network. This also saves the cost of headhunting the right candidate and the time period to fill a vacancy.
Experts sharing knowledge and advice
Remember that you are a venture beginner and lack the most important of all skills the expertise and experience. With the recruitment agency staff, you get both the expertise and professional services. You can count on the manpower recruiting service from Dhaka for getting only the most eligible staff. Additionally as a perk of choosing these services you get free suggestions from the experts. These advices can sometimes be show changer for your venture.
Therefore if you are an entrepreneur looking forward to start a new venture then the recruitment agencies can help provide the best manpower solutions.

Manpower Recruiting Bangladesh services are advisable for new ventures. The Manpower Recruiting Service from Dhaka assures recruitment of quality manpower for these ventures.

Find More Bangladesh Articles

মুসলিম অভিবাসী নিয়ে ট্রাম্পের নরম সুর

ইব্রাহীম চৌধুরী, নিউইয়র্ক | আপডেট: ২০:২৩, জানুয়ারি ৩০, ২০১৭

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প, ওভাল অফিসে রোববার। ছবি: এএফপিযুক্তরাষ্ট্রে মুসলমানদের আগমন নিষিদ্ধ করা হয়নি বলে মন্তব্য করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। তিনি বলেন, ‘আমেরিকা অভিবাসীদের নিয়ে গর্বিত জাতি এবং আমরা এ ধারণার প্রতি আন্তরিক থাকব।’ চরম উদ্বেগ, উৎকণ্ঠা আর সংশয়ের মধ্যেই গতকাল রোববার বিকেলে এক বিবৃতিতে ডোনাল্ড ট্রাম্প এ কথা জানালেন।

ওই বিবৃতিতে বলা হয়েছে, যুক্তরাষ্ট্রে মুসলমানদের আগমন নিষিদ্ধ করা হয়নি। যুক্তরাষ্ট্রে মুসলমান নিষিদ্ধ করার বিষয়টি সংবাদমাধ্যমের ভুল প্রচারণা। আমেরিকা অভিবাসীদের নিয়ে গর্বিত একটি জাতি এবং আমরা এ ধারণার প্রতি আন্তরিক থাকব। দেশের জনগণের নিরাপত্তা নিশ্চিত করেই তা করা হবে বলে ট্রাম্প তাঁর বিবৃতিতে উল্লেখ করেন। বিবৃতিতে বলা হয়, এ ধরনের সাময়িক নিষেধাজ্ঞা প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার সময়ে ২০১১ সালেও করা হয়েছিল। যে সাতটি মুসলিম দেশের নাম এসেছে, এসব দেশের সঙ্গে জঙ্গিবাদের সংশ্লিষ্টতার নাম এসেছে প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার সময়েও।
বিবৃতিতে বলা হয়েছে, বিশ্বের অন্তত আরও ৪০টি মুসলিমপ্রধান দেশ রয়েছে। সেসব দেশের ব্যাপারে তাঁর নির্বাহী আদেশের কোনো প্রভাব নেই বলে ট্রাম্প বিবৃতিতে উল্লেখ করেছেন। তিন মাসের সাময়িক নিষেধাজ্ঞার মধ্যে সবকিছু যাচাই করা হবে, আমেরিকার জনগণের নিরাপত্তাকে প্রাধান্য দিয়েই সবকিছু করা হবে বলে বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়। সিরিয়ার শরণার্থীদের ব্যাপারেও তিনি সহানুভূতিশীল উল্লেখ করে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প তাঁর বিবৃতিতে বলেছেন, এসব শরণার্থীর সাহায্যের জন্য উপায় খোঁজা হবে।

সিরিয়া থেকে শরণার্থী আগমন এবং সাতটি মুসলিম দেশ থেকে যুক্তরাষ্ট্রে আগমনে নিষেধাজ্ঞা জারি করে গত শুক্রবার নির্বাহী আদেশ জারি করেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। এরপরই শুরু হয় নানা বিশৃঙ্খলা। আকাশপথে যুক্তরাষ্ট্রগামী বহু যাত্রীকে বাইরের বিমানবন্দরেই আটকে দেওয়া হয়। গত শনিবার রাতে নিউইয়র্কের ফেডারেল আদালত নির্বাহী আদেশের ফলে কোনো অভিবাসীকে জোরপূর্বক বিতাড়নের ওপর সাময়িক নিষেধাজ্ঞার আদেশ জারি করেন।

প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের নির্বাহী আদেশ জারির সময় ওই সব দেশ থেকে যেসব যাত্রী ফ্লাইটে ছিলেন, তাঁদের অনেকে যুক্তরাষ্ট্রের বিমানবন্দরে নেমে সমস্যায় পড়তে হয়। অনেককে আটক করে ডিটেনশন কেন্দ্রে নিয়ে যাওয়া হয়। শনিবার সকাল থেকে যুক্তরাষ্ট্রের প্রধান বিমানবন্দরগুলো পরিণত হয় আতঙ্কের এলাকায়। উদ্বিগ্ন লোকজন ছুটে যায় পরিস্থিতির শিকার অভিবাসীদের সমর্থনে। যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে একসঙ্গে বিমানবন্দর এলাকায় এমন প্রতিবাদী মানুষের ঢল কখনো দেখা যায়নি। ঢালাওভাবে মুসলমানদের আগমন বন্ধ করা হচ্ছে কি না—এ নিয়ে বাংলাদেশিসহ অন্য অভিবাসীদের মধ্যে চরম উৎকণ্ঠা দেখা দেয়। দেশে-বিদেশে প্রতিবাদের ঝড় ওঠে। নিউইয়র্কের জন এফ কেনেডি বিমানবন্দরসহ আমেরিকার প্রধান বিমানবন্দরগুলোতে মানুষের ঢল নামে।

রাতভর এসব প্রতিবাদ-বিক্ষোভে মূলত শ্বেতাঙ্গ লোকজনের উপস্থিতিই ছিল বেশি। অভিবাসীবান্ধব হিসেবে পরিচিত আমেরিকার সাধারণ মানুষ প্রতিবাদ-বিক্ষোভে যোগ দিয়ে অনেকেই বলতে থাকে, এ আমাদের পরিচয় হতে পারে না। উদারনৈতিক রাজনীতিবিদ থেকে শুরু করে নাগরিক অধিকার সংগঠনগুলো রাস্তায় নেমে আসে। নিউইয়র্কের জেএফকে বিমানবন্দরে একদল শ্বেতাঙ্গ অভিবাসন আইনজীবীদের স্বেচ্ছাসেবা দেওয়ার জন্য পোস্টার হাতে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা যায়।

সাত দেশের অভিবাসীদের প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা জানিয়ে ট্রাম্পের নির্বাহী আদেশের প্রতিবাদে রোববার ম্যানহাটানের ব্যাটারি পার্কে বিক্ষোভ। ছবি: এএফপিশনিবার সকাল থেকে শুরু হওয়া প্রতিবাদ বিক্ষোভ সর্বত্র ছিল শান্তিপূর্ণ। রোববার হোয়াইট হাউসের সামনেও বিশাল বিক্ষোভ সমাবেশে লোকজন অভিবাসীবান্ধব স্লোগান দেন। নিউইয়র্কের স্ট্যাচু অব লিবার্টি দেখা যায় এমন সড়কপথ, ম্যানহাটনের বেটারি পার্ক এলাকায় বড় ধরনের প্রতিবাদ সমাবেশ যোগ দেয় প্রতিবাদকারীরা। জেএফকে বিমানবন্দরে রীতিমতো অবস্থান নিয়ে টানা প্রতিবাদ চলছে। ব্যাপকসংখ্যক বাংলাদেশিরাও এসব প্রতিবাদ সমাবেশে যোগ দেন। মুসলিম দেশ থেকে আনুষ্ঠানিক জোরালো কোনো প্রতিবাদ না এলেও যুক্তরাজ্যসহ জার্মানি প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের নির্বাহী আদেশের সমালোচনা করে।

নিউইয়র্ক থেকে নির্বাচিত ডেমোক্রেটিক সিনেটর এবং সিনেটে ডেমোক্রেটিক পার্টির প্রধান চার্লস শুমার বলেছেন, প্রেসিডেন্টের নির্বাহী আদেশ বাতিল করার জন্য কংগ্রেসে প্রচেষ্টা চালানো হবে। কংগ্রেসে সংখ্যাগরিষ্ঠ রিপাবলিকানদের সহযোগিতা ছাড়া কিছুই করা সম্ভব নয় বলে সিনেটর চার্লস শুমার বলেছেন।

বাংলাদেশসহ উপমহাদেশের কোনো দেশ প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের নির্বাহী আদেশের তালিকায় না থাকলেও আমাদের অভিবাসীরা অজানা আশঙ্কায় ভুগছেন। অনেকেই তাঁদের অভিবাসন, পারিবারিক অভিবাসন নিয়ে দুশ্চিন্তায় পড়েছেন। বাংলাদেশি আইনজীবীসহ বাংলা সংবাদমাধ্যমে তাঁরা ফোন করে খোঁজখবর নিচ্ছেন। নিজেদের অভিবাসন অবস্থা নিয়ে পরামর্শ কামনা করছেন।

এর মধ্যে নিউইয়র্কসহ অন্যান্য অভিবাসীবহুল রাজ্যে বাংলাদেশি নাগরিক সংগঠনগুলো সাধারণ প্রবাসীদের পাশে দাঁড়িয়েছে। অমূলক উদ্বেগ উৎকণ্ঠায় না পড়ার পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে। যুক্তরাষ্ট্র সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী অ্যাটর্নি মঈন চৌধুরী প্রথম আলোর কাছে দেওয়া বক্তব্যে বলেছেন, প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের নির্বাহী আদেশে বাংলাদেশিদের উৎকণ্ঠার কোনো কারণ নেই। যাঁদের গ্রিন কার্ড আছে, বৈধ অভিবাসন আছে, তাঁদের অবস্থানের কোনো পরিবর্তন হয়নি।

নাগরিক আন্দোলনের নেতা আইনজীবী এন মজুমদার বলেছেন, ‘বাংলাদেশসহ যেকোনো অভিবাসীর পক্ষে আমরা দাঁড়াব।’

অভিবাসী আইনজীবী অ্যাটর্নি শেখ সেলিম বলেছেন, নির্বাহী আদেশ কোনো আইন নয়। আমেরিকা আইনের দেশ। যাঁরা গ্রিন কার্ড নিয়ে বা বৈধভাবে আমেরিকায় এসেছেন, তাঁদের এ নির্বাহী আদেশে ভয় পাওয়ার কোনো কারণ নেই। বিমানবন্দরে কোনো সমস্যায় পড়লে আইনগত প্রতিকার পাওয়ার অধিকার আছে বলে তিনি বলেন।

বাণিজ‌্য মেলা বেড়েছে আরও ৪ দিন

হজযাত্রার খরচ বাড়ল

নেত্রকোণা ও জামালপুর বিশ্ববিদ্যালয় পাচ্ছে

Best Sources for Tech News

Allmedialink.com is a group of all kinds of media portal worldwide. We are calling this platform as gateway of the media-world. So anybody can without much of a stretch comprehend what are we going to give our client. Fundamentally allmedialink.com is an administration situated association.

We have a limitless accumulation of world-media joins. You can utilize it effectively to discover any media house site. In the event that you need to visit tremendous sites in a minute, we can guarantee you that allmedialink.com is the best one. It’s a spot where you can discover all of media destinations in a solitary stage. We have various quality laborers in allmedialink.com group. Every one of them were finished their advanced education from the state funded colleges. They are truly persevering, devoted, and energetic and self propelled to give benefit our customers and clients. Our group pioneer Mr. MD Mahmudul Hasan is a conspicuous writer in Bangladesh.

At here you can get Media Directory, Latest News, Breaking News, Prothom Alo, Bangladesh Pratidin, Kaler Kantho, Times of India, Malayala Manorama, Dainik Bhaskar , BBC News, CNN News, Fox News, ABC News, BDnews24 and All Bangla Newspaper like Body of a baby boy found on Kos beach, It is now a month since the body of three-year-old Alan Kurdi was pictured on a beach in Turkey.

The body of a vagrant infant has been found by Greek coast protect laborers on the island’s shore of Kos beside an occupied traveler inn. The tyke is accepted to be a kid matured between six months and one year. He was wearing green trousers and a white shirt when found by stunned specialists. body of a child has been found on the shore of Kos island, on the cutting edge of the vagrant inundation originating from Turkey.

The body of the baby boy, estimated to be 6-12 months old, was found dressed in green trousers and white t-shirt on the beach of a hotel. According to Greek media reports, authorities believe the child belonged was a member part of a migrant family that tried to reach Kos in a dinghy. The island of Kos was where the body of three-year-old Syrian boy Aylan Kurdi was flown for an autopsy last month.

Pictures of the lifeless body of the Syrian toddler face down on a Turkish beach shocked the world and helped spur European nations to seek an effective response to the growing migrant crisis. The Greek Coast Guard continues the grim job of recovering bodies from the sea and the shores of its islands, fearing that things will only get worse as winter approaches and the weather deteriorates.

In September, at least 15 babies and children drowned when their overcrowded boat capsized in high winds off the Aegean island of Farmakonisi.

Under the plan, Turkey would agree to stepped-up efforts to secure its frontier with the EU by taking part in joint patrols with the Greek coastguard in the eastern Aegean coordinated by EU border protection agency Frontex. For more information visit the site https://allmedialink.com/ .

All media link provides Latest News, Breaking News, BBC, CNN, Fox News, ABC News, BDnews24, All Bangla Newspaper, Media Directory. At here you can get more and more news. It is a great source of information about all kinds of media portal worldwide. We are calling this platform as ‘gateway of the media-world.

একই মঞ্চে সালমান ও হৃতিক

একই মঞ্চে সালমান ও হৃতিক

বিনোদন ডেস্ক | আপডেট: ১৯:০৩, জানুয়ারি ২৯, ২

‘বিগ বস’-এর মঞ্চে সালমান খান ও হৃতিক রোশন‘বিগ বস’-এর গ্র্যান্ড ফিনালেতে মঞ্চ মাতাবেন হৃতিক রোশন ও ইয়ামি গৌতম। সদ্য মুক্তি পাওয়া ছবি ‘কাবিল’-এর প্রচারে অনুষ্ঠানে হাজির হবেন এই দুই তারকা। গতকাল থেকেই ‘বিগ বস টেন’-এর চূড়ান্ত পর্বে হৃতিকের আগমনের একটি আভাস পাওয়া যাচ্ছিল। আজ হৃতিকের ইনস্টাগ্রাম পোস্ট দেখে এ বিষয়ে নিশ্চিত হওয়া গেল।

সালমান খানের সঙ্গে তোলা একটি সেলফি প্রকাশ করে তাঁর ক্যাপশনে হৃতিক লিখেছেন, ‘কে শাহেনশাহ আর কে সুলতান। দিন শেষে আমরা ভাই ভাই। ‘বিগ বস টেন’-এ সালমান খানের সঙ্গে আমি আর ইয়ামি আজ ভীষণ মজা করেছি।’
এ অনুষ্ঠানে সালমান আর হৃতিক একসঙ্গে নেচেছেন। আবার ‘সুলতান’ তারকাকে নাকি মঞ্চেই টুকটাক নাচের কায়দা শিখিয়ে এসেছেন হৃতিক। অনুষ্ঠানটি আজ কালারস চ্যানেলে বাংলাদেশি সময় রাত সাড়ে নয়টায় প্রচারিত হবে।
কিছুদিন আগে ‘করণ-অর্জুন’ সিনেমার মুক্তির ২১ বছর পূর্ণ হয়েছে। তখন সালমান খান সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ‘করণ-অর্জুন’ সিনেমার সেটে শাহরুখ ও হৃতিকের সঙ্গে তোলা একটি ছবি প্রকাশ করেন। সেই পোস্টে ‘কাবিল’ ছবির জন্য হৃতিককে শুভকামনাও জানিয়ে ছিলেন তিনি।
উল্লেখ্য, ‘করণ-অর্জুন’ সিনেমার পরিচালক হৃতিকের বাবা রাকেশ রোশন। ইন্ডিয়া টুডে।

সেই ভ্যান চালকের ‘চাকরি হচ্ছে’ বিমান বাহিনীতে

ট্রাম্প-পুতিনের ফোনালাপ

অনলাইন ডেস্ক | আপডেট: ০৯:১৮, জানুয়ারি ২৯, ২০১

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প গতকাল শনিবার একাধিক বিশ্বনেতার সঙ্গে ফোনে কথা বলেছেন। তাঁদের মধ্যে রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লামিদির পুতিনও আছেন। বিবিসি অনলাইনের প্রতিবেদনে এই তথ্য জানানো হয়।

গত ২০ জানুয়ারি মার্কিন প্রেসিডেন্ট হিসেবে ট্রাম্প দায়িত্ব নেওয়ার পর এই প্রথম রুশ প্রেসিডেন্ট পুতিনের সঙ্গে তাঁর আনুষ্ঠানিক ফোনালাপ হলো।

ট্রাম্প-পুতিন ফোনালাপের পর এ বিষয়ে পৃথক বিবৃতি দিয়েছে ক্রেমলিন ও হোয়াইট হাউস।

ইংরেজিতে দেওয়া বিবৃতিতে ক্রেমলিন বলেছে, ফোনে দুই নেতার আলোচনায় সন্ত্রাসবাদ দমনের বিষয়টি সর্বোচ্চ গুরুত্ব পেয়েছে। বৈশ্বিক সন্ত্রাসবাদ মোকাবিলায় রাশিয়া ও যুক্তরাষ্ট্র একমত হয়েছে। এর মধ্যে সিরিয়ায় জঙ্গিগোষ্ঠী ইসলামিক স্টেট (আইএস) ও অন্যান্য সন্ত্রাসী গোষ্ঠীদের দমনের বিষয়টিও রয়েছে।

ক্রেমলিন জানিয়েছে, দুই নেতার মধ্যে ইতিবাচক ও গঠনমূলক আলোচনা হয়েছে। সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে লড়াই নিয়ে তাঁদের মধ্যে কথা হয়েছে। তাঁরা মধ্যপ্রাচ্য ও আরব-ইসরায়েলের মধ্যকার সংঘাত নিয়ে আলোচনা করেছেন। আলোচনায় উত্তর ও দক্ষিণ কোরিয়ার প্রসঙ্গ এসেছে। ইরানের পরমাণু কর্মসূচি নিয়ে তাঁরা কথা বলেছেন। আলোচনায় ইউক্রেন প্রসঙ্গও ছিল।

হোয়াইট হাউস জানিয়েছে, দুই দেশের মধ্যে সম্পর্কোন্নয়নের লক্ষ্যে ট্রাম্প ও পুতিনের মধ্যকার ফোনালাপটি ছিল একটি ‘তাৎপর্যপূর্ণ সূচনা’।

এক সংক্ষিপ্ত বিবৃতিতে হোয়াইট হাউস বলেছে, এই ফোনালাপের পর উভয় পক্ষ (যুক্তরাষ্ট্র ও রাশিয়া) সন্ত্রাসবাদ মোকাবিলা এবং স্বার্থ-সংশ্লিষ্ট অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে দ্রুত পদক্ষেপ নিতে পারবে বলে দুই দেশের প্রেসিডেন্টই আশাবাদী।

হোয়াইট হাউস জানায়, পরবর্তী কোনো এক সময়ে মুখোমুখি বৈঠকে বসার ব্যাপারে ট্রাম্প ও পুতিন একমত হয়েছেন। তাঁরা নিয়মিত ব্যক্তিগতভাবে যোগাযোগ রাখার বিষয়ও সম্মত হয়েছেন।

ট্রাম্প গতকাল জাপান, জার্মানি, ফ্রান্স ও অস্ট্রেলিয়ার নেতাদের সঙ্গেও ফোনে কথা বলেছেন।

বিদেশি মিশনগুলোতে নজরদারি চান এনবিআর চেয়ারম‌্যান

১৭, ১৮ ও ১৯ ফেব্রুয়ারি টরন্টোতে কনস্যুলার সার্ভিস

১৭, ১৮ ও ১৯ ফেব্রুয়ারি টরন্টোতে কনস্যুলার সার্ভিস
 
কানাডার অটোয়াস্থ বাংলাদেশ হাইকমিশন আগামী ১৭, ১৮ ও ১৯ ফেব্রুয়ারি শনিবার ২৬৭০ ড্যানফোর্থ এভিনিউর বাংলাদেশ সেন্টারে প্রতিদিন  সকাল ৯টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত কনস্যুলার সেবা প্রদান করবে।
অটোয়াস্থ বাংলাদেশ হাইকমিশন থেকে জানানো হয়েছে, প্রতিদিন সকাল ৯টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত মেশিন রিডেবল পাসপোর্ট ( এমআরপি), নো-ভিসা রিকোয়ার্ড সীল (এনভিআর), ভিসা এবং ডকুমেন্ট এটেস্টেশন (জরুরী) সংক্রান্ত সেবা প্রদান করা হবে। ড্রাইভিং লাইসেন্স সত্যায়ন, ডকুমেন্ট এটেস্টেশন (সাধারণ) এবং মেশিন রিডেবল পাসপোর্ট  রিইস্যু সংক্রান্ত  দলিলাদিও  গ্রহণ করা হবে যা পরবর্তীতে ডাকযোগে সেবা গ্রহীতার কাছে যথাসময়ে ফেরত পাঠানো হবে। এক্ষেত্রে নিজ ঠিকানা সম্বলিত এক্সপ্রেস খাম (কানাডা-পোস্ট) সংশ্লিষ্ট আবেদনের সাথে প্রদান করতে হবে। বিভিন্ন সেবাসমূহের জন্য নির্ধারিত ফি ও প্রয়োজনীয় তথ্য বাংলাদেশ হাইকমিশনের ওয়েবসাইটে (www.bdhcottawa.ca)  পাওয়া যাবে।
উক্ত দিনগুলোতে টরন্টো এরিয়াতে বসবাসরত বাংলাদেশীদের সুবিধার্থে নতুন পাসপোর্টের (মেশিন রিডেবল পাসপোর্ট) আবেদনও গ্রহণ করা হবে। এক্ষেত্রে আবেদনকারীকে স্বশরীরে সেবা প্রদানস্থলে অবশ্যই উপস্থিত থাকতে হবে। ঐ তিনদিনে মোট ১৫০টি মেশিন রিডেবল পাসপোর্টের আবেদন গ্রহণ করা হবে। নতুন মেশিন রিডেবল পাসপোর্ট ( এমআরপি), নো-ভিসা রিকোয়ার্ড সীল (এনভিআর) ও অন্যান্য সেবা গ্রহণ ইচ্ছুক আবেদকারীকে আগামী ১০ ফেব্রুয়ারীর মধ্যে ফোনে বাংলাদেশ হাইকমিশনে নাম নিবন্ধনের জন্য অনুরোধ করা যাচ্ছে। নিবন্ধিত তালিকা হতে প্রথম ১৫০ জনের আবেদন গ্রহণ করা হবে। নিবন্ধনবিহীন কোনো এমআরপি আবেদন গ্রহন করা হবে না।
উল্লেখ্য, টরন্টোতে প্রথমবারের মতো মেশিন রিডেবল পাসপোর্টের সেবা প্রদান অনুষ্ঠানের উদ্বোধন, সেবাকেন্দ্রের পরিদর্শন এবং স্থানীয় বাংলাদেশীদের সাথে মতবিনিময় ও সৌজন্য স্বাক্ষাতের লক্ষে ১৭ ফেব্রুয়ারি সকাল ১০টা থেকে দুপুর ১২ টা পর্যন্ত বাংলাদেশের মান্যবর হাইকমিশনার মিজানুর রহমান উপস্থিত থাকার সদয় সম্মতি জ্ঞাপন করেছেন।
এ সংক্রান্ত আরো তথ্য জানতে চাইলে ফোন করুন ৬১৩-২৩৬-০১৩৮, এক্সটেনশন-২২৫/২২৭। ভিজিট করতে পারেন- www.bdhcottawa.ca
Source: Bengalitimes.com

‘জরায়ুর বাইরে’ বাড়ল শিশু, ভূমিষ্ঠ হলো নিরাপদে

মিটার ‘না দেখেই’ বিল, ভোগান্তিতে গ্রাহক

নিকিতার হয়ে বাংলায় কথা বলবেন তাহসিন

বিনোদন প্রতিবেদক | আপডেট: ০১:৫৮, জানুয়ারি ২৮, ২০১৭ | প্রিন্ট সংস্করণ

‘নিকিতা’ টিভি সিরিজে নাম–ভূমিকায় অভিনয় করেছেন ম্যাগি কিউতাহসিনযুক্তরাষ্ট্রের জনপ্রিয় টিভি সিরিজ ‘নিকিতা’ দেখানো হবে চ্যানেল আইতে। ২০১০ সালে নির্মিত এই ধারাবাহিকের প্রধান চরিত্র ‘নিকিতা’ এবার কথা বলবেন বাংলায়। এমনটাই জানালেন নিকিতার হয়ে বাংলায় কণ্ঠ দেওয়া সিফাত তাহসিন। ২০০৯ সালের লাক্স–চ্যানেল আই সুপারস্টার প্রতিযোগিতায় ‘সেরা পাঁচ’-এ জায়গা নেওয়া তাহসিন মডেলিং ও অভিনয়ের সঙ্গেও জড়িত। তবে অন্য কারও জন্য ডাবিংয়ের অভিজ্ঞতা তাঁর এবারই প্রথম। তার ওপর নিকিতার চরিত্রে কণ্ঠ দিয়ে তাহসিনের উচ্ছ্বাস তো আরও বেশি।
তাহসিন বলেন, ‘এটা আমার জন্য দারুণ সুযোগ। ডাবিং করার অভিজ্ঞতা আগে ছিল না। সুযোগটা পেয়েই তাই কাজে লাগালাম।’
অ্যাকশন, থ্রিলার ও টান টান উত্তেজনায় ভরা এই ধারাবাহিকটি চ্যানেল আইতে প্রচার শুরু হবে ফেব্রুয়ারির প্রথম শুক্রবার থেকে। প্রতি শুক্র ও শনিবার বিকেল ৫টা ৪৫ মিনিটে প্রচারিত হবে নিকিতা, এ তথ্য জানিয়েছেন চ্যানেল আইয়ের বিক্রয় ও বিপণন বিভাগের পরিচালক ইবনে হাসান খান। তিনি বলেন, ‘বিশ্বের অনেক নামকরা তারকা ডাবিং করে থাকেন। সেই দিকটি চিন্তা করেই আমরা তাহসিনকে দিয়ে ডাবিং করিয়েছি। আশা করছি, দর্শক ও শ্রোতারা উপভোগ করবেন।’
শুধু ডাবিং নয়, তাহসিনকে এখন দেখা যাচ্ছে নিকিতার প্রমোতেও। পোশাক-পরিচ্ছদও সেই পশ্চিমা নিকিতার মতো। এরই মধ্যে আলোচনায় এসেছে নির্মাতা আদনান আল রাজীবের নির্মাণ করা এই প্রমো।

কাতারে আনন্দময় বাংলাদেশ-সন্ধ্যা

কাতার প্রতিনিধি | আপডেট: ০১:৪২, জানুয়ারি ২৮, ২০১৭ | প্রিন্ট সংস্ক

কাতারের রাজধানী দোহায় গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় আয়োজিত পাঠক উৎসবে উপস্থিত দর্শক–শ্রোতাদের একাংশ l ছবি: প্রথম আলোবাইরে প্রথমা প্রকাশনের স্টল ও বাংলাদেশি পণ্য প্রাণের কর্নারে ক্রেতাদের ভিড়, ভেতরে বাংলা গানের সুরের মূর্ছনায় উদ্বেলিত শ্রোতাদের করতালিতে মুখরিত মিলনায়তন—এভাবেই একখণ্ড বাংলাদেশ যেন জেগে উঠেছিল কাতারের রাজধানী দোহার মুনতাজায় আবু বকর সিদ্দিক বয়েজ স্কুলে। কাতারে প্রথম আলোর সাপ্তাহিক উপসাগরীয় সংস্করণের দ্বিতীয় বর্ষপূর্তি উপলক্ষে আয়োজিত পাঠক উৎসবে এভাবেই বর্ণিল হয়ে ওঠে এক আনন্দময় বাংলাদেশ-সন্ধ্যা।

গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় আয়োজন করা হয় এই পাঠক উৎসবের। এতে কাতারপ্রবাসী বিভিন্ন শ্রেণি ও পেশার প্রবাসী বাংলাদেশিরা সপরিবার অংশ নেন। তরুণেরা ছুটে আসেন বন্ধুবান্ধবসহ। সন্ধ্যায় অনুষ্ঠান শুরুর আগেই মিলনায়তন মুখরিত হয়ে ওঠে তাঁদের সপ্রতিভ আনন্দময় উপস্থিতিতে। আলোচনা, প্রশ্নোত্তর পর্ব আর সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান আনন্দকে আরও বেশি পূর্ণতা দেয়। শিল্পী এস আই টুটুল আর দিনাত জাহান মুন্নির গানে উল্লাসে মেতে ওঠেন দর্শক।

পাওয়ার নিবেদিত প্রথম আলোর উপসাগরীয় সংস্করণের এই পাঠক উৎসবের সহযোগিতায় ছিল মুঘল স্পাইস। বিমান সহযোগী ছিল কাতার এয়ারওয়েজ।

কাতারের রাজধানী দোহায় গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় আয়োজিত পাঠক উৎসবে উপস্থিত দর্শক শ্রোতাদের একাংশ। ছবি: প্রথম আলোস্থানীয় সময় রাত আটটায় মঞ্চে উঠে প্রথম আলোর ব্যবস্থাপনা সম্পাদক সাজ্জাদ শরিফ উপস্থিত প্রবাসী অতিথিদের শুভসন্ধ্যা জানান। কখন শুরু হবে অনুষ্ঠান, কখন বিদেশের মাটিতে বাংলার কথা আর গানের মূর্ছনা ছড়িয়ে পড়বে দোহার বুকে, সে জন্য উন্মুখ হয়ে ছিলেন প্রবাসী দর্শক-শ্রোতারা! বক্তৃতায় ও প্রশ্নোত্তর পর্বে যখন ঘুরেফিরে আসছিল বাংলাদেশ ও সংবাদপত্রের কথা, তাঁরা তখন তাতে সক্রিয়ভাবে অংশ নেন। প্রশ্নোত্তর পর্বে তাঁরা জানতে চান বাংলাদেশ ও প্রথম আলো সম্পর্কে। প্রথম আলোর উপসাগরীয় সংস্করণ নিয়ে তাঁরা নানা পরামর্শ দেন। এরপর শিল্পী এস আই টুটুল ও দিনাত জাহান যখন মঞ্চে গান গাইতে আসেন, তখন তাঁরা বাঁধভাঙা উল্লাসে মেতে ওঠেন।

অনুষ্ঠানে প্রবাসী পাঠকদের উদ্দেশে বক্তৃতা করেন কাতারে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত আসুদ আহমদ, কাতারের দেওয়ানি আমিরের ইতিহাসবিষয়ক উপদেষ্টা ড. হাবিবুর রহমান, প্রথম আলোর ব্যবস্থাপনা সম্পাদক সাজ্জাদ শরিফ, বাংলাদেশ এইচএম স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ জসিম উদ্দিন প্রমুখ। এ ছাড়া দূতাবাসের কর্মকর্তা, বাংলাদেশ স্কুলের শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও অভিভাবক, বাংলাদেশ কমিউনিটির গণ্যমান্য ব্যক্তিরা অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত আসুদ আহমদ বলেন, ‘বাংলাদেশ-কাতার সম্পর্ক আগের যেকোনো সময়ের চেয়ে এখন বেশি শক্তিশালী। ইউনেসকোর চেয়ারম্যান পদে কাতারের প্রার্থীকে বাংলাদেশ সমর্থন দিয়ে সেই পথে আরও অনেক দূর এগিয়ে গেছে। সম্পর্ক আরও এগিয়ে নিতে কাতারে বসবাসরত সব শ্রেণি–পেশার বাংলাদেশি প্রবাসীদের সমর্থন ও সহযোগিতা প্রয়োজন। আর এর জন্য সবচেয়ে বেশি ভূমিকা রাখতে পারে প্রথম আলো। আশা করব প্রথম আলোর উপসাগরীয় সংস্করণ কাতারের আইনকানুনসহ নানা বিষয় তুলে ধরে অব্যাহতভাবে প্রবাসীদের পাশে থাকবে।’

ড. হাবিবুর রহমান বলেন, ‘বিদেশের মাটিতে মুদ্রিত বাংলা ভাষার পত্রিকা পাওয়া যাবে, কয়েক বছর আগেও এমন চিন্তা ছিল দুরূহ। কাতারসহ মধ্যপ্রাচ্যে কর্মরত প্রবাসীরা রেমিট্যান্স পাঠিয়ে দেশের অর্থনীতিতে অবদান রাখছেন। পাশাপাশি বিদেশের মাটিতে তাঁরা দেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করছেন। এখানে সবাই বাংলাদেশের দূত। প্রবাসীরা দেশকে দিয়েই যাচ্ছেন। দেশ তাঁদের কিছুই দিচ্ছে না। দুঃখের বিষয়, দেশে যাওয়ার পথে তাঁরা বিমানবন্দরে হয়রানির শিকার হন। আমরা আশা করব, প্রথম আলো প্রবাসীদের নানা সমস্যা আরও জোরালোভাবে তুলে ধরবে। দূতাবাসকে আরও সক্রিয়ভাবে প্রবাসীদের পাশে থাকতে হবে।’

প্রথম আলোর ব্যবস্থাপনা সম্পাদক প্রবাসীদের পাঠক উৎসবে যোগ দেওয়ায় ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, ‘প্রথম মুদ্রিত সংবাদপত্র হিসেবে দেশের বাইরে প্রথম আলো প্রকাশ করে নতুন অধ্যায় যোগ করেছে। আগামী মার্চ থেকে উত্তর আমেরিকা সংস্করণ বের হচ্ছে। তবে কাতার থেকে শুরু করতে পারাটা আমাদের জন্য আনন্দের। প্রথম আলোর মূল শক্তি পাঠক। দেশের মতো বিদেশেও পাঠকেরা প্রথম আলোকে সামনে এগিয়ে নেবেন, এটাই আমরা বিশ্বাস করি।’

আলোচনার পর শুরু হয় সাংস্কৃতিক পর্ব। প্রবাসী শিল্পী আবদুল্লাহ আল মামুন গেয়ে শোনান তাঁর লেখা জনপ্রিয় গান ‘তোরে পুতুলের মতো করে সাজিয়ে’। চিরন্তন বাউল সংঘ পরিবেশনা করে সিলেটের ঐতিহ্যবাহী গানের তালে তালে নৃত্য। এরপর মঞ্চ মাতাতে আসেন দিনাত জাহান। ‘একবার যেতে দে না’ গানে দর্শক-শ্রোতারা উদ্বেলিত হয়ে ওঠেন। এরপর একে একে আধুনিক গানের পাশাপাশি তিনি গেয়ে শোনান হাসন রাজা, শাহ আবদুল করিমসহ বিভিন্ন আঞ্চলিক গান। সবশেষে মঞ্চে আসেন এস আই টুটুল। ‘কেউ প্রেম করে, কেউ প্রেমে পড়ে’, ‘রাতের আকাশে’সহ তাঁর জনপ্রিয় গানগুলো শোনান। শেষ করেন ‘তোমার দোয়ায় ভালো আছি মা’ গান দিয়ে। দর্শকেরা তাঁর সঙ্গে কণ্ঠ মেলান।

এর মধ্য দিয়ে সমাপ্ত হয় প্রথম আলোর বর্ণিল এই পাঠক উৎসব। একরাশ আনন্দময় তৃপ্তি নিয়ে ঘরে ফেরেন বিভিন্ন শ্রেণি ও পেশার প্রবাসী শ্রোতা-দর্শকেরা। অনুষ্ঠানের পুরো সময়জুড়ে প্রথমা প্রকাশনের বইয়ের স্টলে ভিড় করেন প্রবাসীরা।

বাণিজ্য মেলায় শেষ সময়ের ব্যস্ততা

সার্ফার আলমগীর নিজেই তৈরি করছেন সার্ফিং বোর্ড

সজীব মিয়া | আপডেট: ০০:৩২, জানুয়ারি ২৮, ২০১৭ | প্রিন্ট সংস্করণ
দ্য গার্ডিয়ান অনলাইনে আলমগীরকে নিয়ে প্রকাশিত প্রতিবেদনকক্সবাজারের অধিকাংশ সার্ফারের মতো মোহাম্মদ আলমগীরের জীবনটাও সাদামাটা। রোজকার কাজ শেষে সার্ফিং বোর্ড নিয়ে নেমে পড়েন নোনা জলে। তবে এই তরুণ সার্ফার সবার নজর কেড়েছেন সার্ফিং বোর্ড বানিয়ে। স্রেফ দেশীয় উপকরণ দিয়েই তিনি বানাচ্ছেন মানসম্পন্ন সার্ফিং ও উদ্ধারকারী বোর্ড। বাংলাদেশে যা বিরল। তাঁকে নিয়ে প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমে। আলমগীরের স্বপ্ন ও সংগ্রামের কথা নিয়ে এবারের প্রচ্ছদ প্রতিবেদন

একটু আগেই সূর্য ডুবেছে। তবে কক্সবাজার সৈকতে তখনো উজ্জ্বল দিনের আলো। হাওয়া বদলাতে আসা মানুষেরা সূর্যকে বিদায় জানাতে হাজির। তাই সৈকতের লাবণী পয়েেন্ট পা ফেলার জো নেই। এখানেই দেখা হওয়ার কথা

মোহাম্মদ আলমগীরের সঙ্গে। ১৭ জানুয়ারি সকালে যখন কথা হয়, তিনি বলেছেন, ‘আমার ছয়টা পর্যন্ত ডিউটি, এরপর আপনি লাবণীতে আইসা কল দিয়েন।’
আলমগীরের ফোনে কয়েকবার রিং হলো। কিন্তু অপর প্রান্তে কোনো সাড়া নেই। ঘড়িতে ছয়টা পার হয়েছে। মানুষের শোরগোল কমতে শুরু করেছে। তীরে আছড়ে পড়া ঢেউয়ে সুর তুলছে সমুদ্র। তখনই আলমগীরের ফোন, ‘ভাই, আমি তো উইকলি মিটিংয়ে। এই পাশেই অফিস, আপনি একটু আসেন।’
নিজের তৈরি উদ্ধারকারী বোর্ড হাতে মোহাম্মদ আলমগীর। ছবি: সংগৃহীতমোহাম্মদ আলমগীর একজন শৌখিন সার্ফার। তাঁর মতো সৈকতে বড় হওয়া অনেকেই সমুদ্রের উত্তাল ঢেউয়ের সঙ্গে পাল্লা দেন। তবে আলমগীর সবার নজর কেড়েছেন নিজ হাতে বানানো সার্ফিং বোর্ড নিয়ে। দেশীয় উপকরণ সংগ্রহ করেই তিনি বানিয়েছেন মানসম্পন্ন সার্ফিং ও উদ্ধারকারী বোর্ড। যুক্তরােজ্যর ইংরেজি দৈনিক দ্য গার্ডিয়ান–এর অনলাইন সংস্করণে তাঁর গল্প পড়েছে দুনিয়ার অনেক মানুষ। সার্ফিং কিংবা কোনো উদ্ধার অভিযানে নিজের তৈরি বোর্ড নিয়েই তিনি নেমে পড়েন সমুদ্রে। তাঁর সাক্ষাৎ পেতেই সেদিন লাবণী পয়েন্টে যাওয়া।
সৈকতের এই স্থানটির কাছেই একটি বিপণিবিতানের কক্ষে সি-সেফের কার্যালয়। খুঁজে নিতে খুব বেশি বেগ পেতে হলো না। আলমগীর পেশায় এই বেসরকারি সংস্থার উদ্ধারকর্মী। সি-সেফের এ কর্মসূচি বাস্তবায়নে সহযোগিতা দিচ্ছে সেন্টার ফর ইনজুরি প্রিভেনশন অ্যান্ড রিসার্চ বাংলাদেশ (সিআইপিআরবি) নামে আন্তর্জাতিক একটি সংস্থা। সৈকতে বেড়াতে আসা পর্যটকদের সচেতন করা এবং পানিতে ডুবতে বসা পর্যটকদের জীবন রক্ষা করা সি-সেফের উদ্ধারকর্মীদের কাজ। ছোট ঘরের এক দিকে বসার জায়গা, অন্য দিকটায় রাখা তিনটি উদ্ধারকারী বোর্ড। সংস্থাটির কক্সবাজার কর্মসূচির ব্যবস্থাপক ইমতিয়াজ আহমদ ইশারায় হলুদ একটি
বোর্ড দেখিয়ে বললেন, ‘এটা আলমগীরের বানানো’। এই সি-সেফ কার্যালয়ে বসেই কথা শুরু হয় আলমগীরের সঙ্গে।

আলমগীর সমুদ্রের উত্তাল ঢেউয়ের সঙ্গে পাল্লা দেন নিজের বানানো সার্ফিং বোর্ডে। ছবি: সংগৃহীতউত্তাল ঢেউয়ের রোমাঞ্চ
২০১১ সালের কথা। সৈকতে তখন ওয়াটার বাইক চালান আলমগীর। বিকেল হলেই এই লাবণী পয়েন্টে আসতেন সার্ফার জাফর আলম। দলবল নিয়ে শুরু করেন সার্ফিং। কাছ থেকে আগ্রহ নিয়ে দেখেন ১৮ বছর বয়সী আলমগীর। ঢেউয়ের সঙ্গে পাল্লা, কী রোমাঞ্চকর ব্যাপার! কল্পনায় আচমকা নিজেকেই আবিষ্কার করেন সার্ফিং বোর্ডে। তবে তাঁকে বেশি দিন কল্পনার জগতে থাকতে হলো না। আলমগীর বলেন, ‘ফাইফরমাশ খাটতে খাটতে একসময় জাফর আলমের দলের সদস্য হয়ে যাই।’
দিন, মাস পেরিয়ে তাঁর জীবনে স্বপ্ন পূরণের ক্ষণ আসে। সার্ফিং বোর্ড নিয়ে ছুটে যান সমুদ্রে। শুরু হয় এক সমুদ্রসন্তানের রোমাঞ্চকর জীবন। আলমগীর বলে যান, ‘সার্ফিং করার অনুভূতি আসলে বলে বোঝানো যাবে না।’
কক্সবাজারের অধিকাংশ সার্ফারের মতোই তাঁর গল্প। জীবনের হয়তো অনেক টানাপোড়েন, কিন্তু সবকিছু সামাল দিয়েও সার্ফিং বোর্ড নিয়ে নেমে পড়েন নোনা জলে। আলমগীর এখন ‘ওয়েভ রাইডার’ নামে একটি সার্ফিং ক্লাবের সঙ্গে যুক্ত। রোজকার কাজ শেষে নেমে পড়েন সাগরে।

বোর্ড বানাতে ব্যস্ত আলমগীরবোর্ডের নেশায়
সার্ফিংয়ে তো হাতেখড়ি হলো, কিন্তু তাঁর নিজের একটি সার্ফিং বোর্ড নেই। তাই ইচ্ছে হলেই পানিতে নামার উপায় নেই। অবশ্য আর দশজন সার্ফারের অবস্থাও তাঁর মতোই। ব্যয়বহুল সার্ফিং বোর্ড সবার থাকার কথাও নয়। তবু একটি সার্ফিং বোর্ডের আকাঙ্ক্ষা আলমগীরকে পেয়ে বসে। তত দিনে তাঁর সার্ফার-জীবনের তিন বছর। ২০১৪ সালের মে মাসে নিজেই সার্ফিং বোর্ড বানানোর উদ্যোগ নিলেন। কিন্তু আলমগীর প্রথমে সার্ফিং বোর্ড না বানিয়ে বানালেন রেসকিউ বোর্ড। কেন? আলমগীরের সরল স্বীকারোক্তি, ‘হঠাৎ মনে হলো রেসকিউ বোর্ড যদি সি-সেফকে দিতে পারি, তারা আমাকে সহায়তা করবে।’ এরপরই বোর্ড বানানোর উপকরণ সংগ্রহ করলেন কক্সবাজার শহরের শহীদ মিনার রোডের দোকান আর ঢাকার ফুলবাড়িয়া থেকে। প্লাইউড, ফোম, ফাইবার গ্লাসসহ সব উপকরণ নিয়ে শুরু হলো রেসকিউ বোর্ড বানানোর কাজ। গুনে গুনে ১৮ দিন পর আলোর মুখ দেখল আলমগীরের প্রথম বোর্ড। ইমতিয়াজ আহমদ বলছিলেন, ‘ওর কাজ আমাদের বিস্মিত করেছে। জানতাম এমন কিছু সে করছে, কিন্তু সত্যিই পারবে তা ভাবিনি। যদিও তার বোর্ডে অনেক ঘাটতি ছিল। দেশীয় উপকরণ ব্যবহার করায় ওজনটাও ছিল বেশি। তবু কোনো রকম প্রকৌশলজ্ঞান ছাড়া একজন মানুষ কীভাবে এটা বানাল!’

সহায় ইচ্ছাশক্তি
কক্সবাজার শহরের ঘোনার পাড়ায় আলমগীরের জন্ম। ফজলুল কাদের ও জাহানারা বেগম দম্পতির পাঁচ সন্তানের মধ্যে তিনি দ্বিতীয়। মাছ ব্যবসায়ী বাবার পক্ষে সব সন্তানের পড়াশোনা চালিয়ে নেওয়া সম্ভব হয়নি। তাই অষ্টম শ্রেণিতে পড়ার সময় স্কুল ছেড়ে সৈকতে ঝিনুক ফেরির ব্যবসা শুরু করেন আলমগীর। সেটা ২০০৫ সালের কথা। এরপর কয়েকবার পেশা বদলিয়েছেন। ওয়াটার বাইক চালকের সহকারী থেকে ওয়ার্কশপে মোটর গাড়ি, বাইক মেরামত—সব পেশার ছবক নিয়েছেন তাঁর এই জীবনে। বিচিত্র পেশার অভিজ্ঞতা তাঁকে সহায়তা করেছে বোর্ড বানানোর কাজে। আলমগীর ব্যাখ্যা করছিলেন, ‘ওয়াটার বাইকেও অনেক উপকরণ ব্যবহার হয়, যা বোর্ডে দরকার হয়। আবার মোটর ওয়াকর্শপেও অনেক কাজ শিখছি।’
তবে সহায় ছিল, তাঁর অদম্য ইচ্ছা। সৈকতে কোনো বোর্ড ভেঙেছে তো কৌতূহলে সেটা উল্টেপাল্টে দেখেছেন। বোঝার চেষ্টা করেছেন বানানোর জন্য কী উপকরণ ব্যবহার করা হয়েছে। নতুন বোর্ড সংযোজনের কাজ যাঁরা করেন, তাঁদের পাশেও দিনের পর দিন বসে শিখেছেন। আর এভাবেই উপকরণের নাম, পরিমাণ, পরিমাপ ও সংযোজনের বিষয়গুলো আয়ত্ত করেছেন।

আলমগীরের বানানো কয়েকটি বোর্ডদেশে বিরল
প্রথম উদ্ধারকারী বোর্ড বানানোর পর তাঁকে প্রশিক্ষণ দিতে এগিয়ে আসে সি-সেফ। স্টুয়ার্ড থমসন সংস্থার একজন বিদেশি কর্মকর্তা এসেছিলেন বাংলাদেশে। আলমগীর বলেন, ‘স্টুয়ার্ডের কাছে আমি কিছুদিন ক্লাস করেছি। সে হাতেকলমেও অনেক কিছু শিখিয়েছে।’ এরপর একে একে পাঁচটি সার্ফিং ও উদ্ধারকারী বোর্ড বানান আলমগীর, যা আগেরগুলোর চেয়ে আরও মানসম্পন্ন। ২০১৫ সালে ‘মেড ইন বাংলাদেশ’ লেখা নিজের সার্ফিং বোর্ড নিয়ে হাজির হয়েছিলেন ‘ব্র্যাক চিকেন প্রথম জাতীয় সার্ফিং প্রতিযোগিতায়’। তখনই সবাই জানল আলমগীরের বিরল উদ্ভাবন সম্পর্কে। ঢাকায় আলমগীরের উদ্ভাবন নিয়ে বাংলাদেশ সার্ফিং অ্যাসোসিয়েশনের (বিএসএ) সাধারণ সম্পাদক মোয়াজ্জেম হোসেন চৌধুরী বলছিলেন, ‘আলমগীর তো বোর্ড বানানোর কাজটাকে রীতিমতো সাধনা হিসেবে নিয়েছিল। যত দূর জানি, বাংলাদেশে সে-ই প্রথম এমন বোর্ড তৈরি করেছে। আলমগীর আমাদের বিএসএর সিনিয়র সদস্য। তার কাজে আমরা গর্বিত।’
দেশীয় উপকরণে তৈরি বলে আলমগীরের বানানো বোর্ড দামেও সস্তা। ইমতিয়াজ আহমদ বলছিলেন, বিদেশ থেকে একটি রেসকিউ বোর্ড আনতে আমাদের খরচ হয় ৮০ হাজার থেকে ১ লাখ টাকা। অথচ আলমগীরের বানানো রেসকিউ বোর্ড ১৮ হাজার ও সার্ফিং বোর্ড ১২ হাজার টাকায় তৈরি করতে পারেন। তাঁকে কারিগরি বিষয়ে দক্ষ করতে পারলে আমাদের জন্যই ভালো।’
আলমগীরের জীবন ও স্বপ্নের কথা শুনতে শুনতে চলে আসি সাগরপাড়ে। রাতের সুনসান সৈকতে আলাপ হলো আরও কিছুক্ষণ। চিরচেনা সৈকতে দাঁড়িয়ে আলমগীর বলে যান, ‘আমি বাণিজ্যিকভাবে এগুলো বানাতে চাই। স্বপ্ন দেখি আমার নিজের একটি প্রতিষ্ঠান হবে। যেখান থেকে স্বল্পমূল্যে সার্ফিং বোর্ড নিতে পারবে সার্ফাররা।’

পুতিনকে নিয়ে সতর্ক থাকুন: ট্রাম্পকে টেরিজা

Higher Education in Public Universities in Bangladesh

I. Introduction
In Bangladesh there was a time when higher education used to be considered a luxury in a society of mass illiteracy. However, towards the turn of the last century the need for highly skilled manpower started to be acutely felt every sphere of the society for self-sustained development and poverty alleviation. Highly trained manpower not only contributes towards human resource development of a society through supplying teachers, instructors, researchers and scholars in the feeder institutions like schools, colleges, technical institutes and universities. They are also instrumental in bringing about technological revolution in the field of agriculture, industry, business and commerce, medicine, engineering, transport and communication etc. The development of a modern society depends to a large extent on the nature and standard of higher education. Thus the role of higher education is to prepare competent, knowledgeable and far-sighted people for assuming various higher responsibilities. The growing importance of knowledge in the modern world can hardly be overemphasized, especially in the era of globalization and in a global environment which is fiercely competitive1.
1Pakistan Journal of Social Sciences (PJSS); Vol. 30, No. 2 (December 2010), pp. 293-305

II. Public Universities in Bangladesh
After the liberation of Bangladesh in 1971, during the last 35 years, higher education scenario has greatly been transformed. The number of public universities has increased significantly. Public universities are the foremost choice of the majority students seeking higher education. This is for various reasons. First, these universities offer wide range of subjects in Science, Commerce, Liberal Arts, Humanities, Engineering and Technology, Law, Education and Medicine disciplines. Second, public universities attract the best brains and researchers as teachers although monetary compensation for them is anything far from attractive. Third, library, laboratory, internet and research facilities are much better there than anywhere else in the country. Fourth, seminars, symposiums, workshops, debates, exhibitions and visiting teachers lecture series are often held in these institutions with a wide scope for national and international exposures for promising young knowledge seekers. Fifth, residential and boarding facilities at low cost/subsidized rates are available in these public universities1.
1Pakistan Journal of Social Sciences (PJSS); Vol. 30, No. 2 (December 2010), pp. 293-305

Table 1: Annual Total Intake and Total Number of Students

Name of the
university Annual Total Intake Total Number
of students Male
students Female
students
University of Dhaka 5219 28772 19119 9653
University of Chittagong 3773 19301 14192 5109
University of Rajshahi 4305 26909 19133 7776
Khulna University 642 4423 3440 983
Comilla University 350 591 417 174
Jahangirnagar University 1361 10417 7082 3335
Islamic University 1210 10109 7913 2196
Bangladesh Agricultural University 757 4621 3211 1410
Jagannath University 2415 25896 21774 4122
Name of the
university Annual Total Intake Total Number of students Male
students Female
students
Bangladesh University of Engineering & Technology 885 7218 5865 1353
Shahjalal University of Science and Technology 1160 7930 6156 1774
Bangabandhu Sheikh Mujib Medical University Na 1116 695 421
Bangabandhu Sheikh Mujibur Rahman Agricultural University 100 535 333 202
Hajee Mohammad Danesh Science and Technology University 335 1494 986 508
Mawlana Bhashani Science and Technology University 350 1350 1039 311
Patuakhali Science and Technology University 265 1350 1039 311
Sher-e-Bangla Agricultural University 375 1542 1033 509
Chittagong University of Engineering & Technology 431 1761 1562 199
Rajshahi University of Engineering & Technology 480 1842 1659 183
Khulna University of Engineering & Technology 115 2464 2252 212
Barisal University Na Na Na Na
Noakhali Science and Technology University 180 518 383 135
Dhaka University of Engineering and Technology 440 1822 1685 137
Jatiya Kabi Kazi Nazrul Islam University 108 483 310 173
Chittagong Veterinary and Animal Sciences University 70 315 245 70
Name of the
university Annual Total Intake Total Number of students Male
students Female
students
Sylhet Agricultural University 71 539 435 104
Jessore Science and Technology University Na 590 350 240
Bangladesh University of Professionals Na 868 649 219
Begum Rokeya University 300 300 221 79
Pabna University of Science and Technology 240 440 400 40
Bangladesh Open University Na 265274 169109 96165
National University 160871 939730 551015 388715

Source: University Grand Commission (UGC)

In comparison to this huge number of students, the number of teachers available in public universities is quite low. Moreover, not all of them are excellent enough to make the students skillful and knowledgeable. Also a large portion of them are involved in teacher politics as they were employed in the universities on the basis of that. This makes the standard of the public universities low.

Table 2: Number of Teaching and Non-Teaching Staff

Name of the
university Teaching Staff
Male Female Non-Teaching Staff
Officers Class (III & IV)
University of Dhaka 1159 394 605 3197
University of Chittagong 750 211 294 1686
University of Rajshahi 668 364 617 2060
Khulna University 280 46 168 145
Islamic University 284 25 221 507
Jahangirnagar University 365 107 2049 1371
Bangladesh Agricultural University 481 48 394 1788
Name of the
university Teaching Staff
Male Female Non-Teaching Staff
Officers Class (III & IV)
Bangladesh University of Engineering & Technology 463 90 156 943
Shahjalal University of Science and Technology 304 68 120 355
Jagannath University 207 152 32 188
Comilla University 19 04 13 25
Bangabandhu Sheikh Mujib Medical University 301 93 722 1879
Bangabandhu Sheikh Mujibur Rahman Agricultural University 76 06 50 182
Hajee Mohammad Danesh Science and Technology University 119 20 60 345
Mawlana Bhashani Science and Technology University 66 01 57 254
Patuakhali Science and Technology University 104 06 47 260
Sher-e-Bangla Agricultural University 108 23 108 401
Sylhet Agricultural University 54 05 16 76
Rajshahi University of Engineering & Technology 132 06 54 200

Khulna University of Engineering & Technology 179 08 61 192
Dhaka University of Engineering and Technology 114 15 49 164
Chittagong University of Engineering & Technology 116 13 62 181
Noakhali Science and Technology University 27 02
19 92
Barisal University Na Na
Name of the
university Teaching Staff
Male Female Non-Teaching Staff
Officers Class (III & IV)
Jatiya Kabi Kazi Nazrul Islam University 29 05 15 37
Chittagong Veterinary and Animal Sciences University 51 09 18 82
Jessore Science and Technology University Na 06 06
Bangladesh University of Professionals Na 11 37
Begum Rokeya University 11 1 03 00
Pabna University of Science and Technology Na 08 00
Bangladesh Open University 79 26 285 733
National University 39519 19316 649 1024

Source: University Grand Commission (UGC)

Table 3: library facilities

Name of the university Total no. of books Total no. of journals
University of Dhaka 621058 76000
University of Chittagong 211860 29441
University of Rajshahi 297369 40167
Khulna University 30484 4882
Islamic University 78796 16000
Jahangirnagar University 104686 12840
Bangladesh Agricultural University 21079 37511
Bangladesh University of Engineering & Technology 126468 17849
Begum Rokeya University Na Na
Name of the university Total no. of